“ঋতুনাট্য”

প্রকাশকাল- ২২:২৮,আগস্ট ৫, ২০১৭,অনাবিল সাহিত্য বিভাগে

r99প্রিয়াঙ্কা সরকার

প্রকৃতির বিস্তৃতি অপার। প্রাকৃতীয় কলমের আদলে গড়ে ওঠা মনের আদল আজ মানুষের পরিধিতে যে বিস্তৃতির অবয়ব গঠন করবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ঋতুনাট্যে রবীন্দ্রনাথ তারই তাগিদ পরিলক্ষণ করেছেন। মিলন ” যা মালিন্য দূর করে পরিণমনে যুথোবদ্ধ করে জাতি মানুষের এ পার ওপার। শান্তিনিকেতন কবিকে সেই ভাবের পট ব্যক্ত করে। বসন্ত উৎসব, শেকসপিয়ারের কমেডি নাটকে তার তাৎপর্য বিস্তৃত। যদিও রবি কবির ঋতুনাট্যে প্রাচ্য প্রকট। তবে বাঙ্গালি যাত্রাপালা যে তার ছাপ রেখে বিষয় কে সামগ্রিক করবে তা,বলার অপেক্ষা রাখে না। সমাজ ছেড়ে যেমন সাহিত্য নয়, অনুরূপে প্রকৃতি মূল অবয়ব হয়ে ধরা দিয়েছে ঋতুনাট্যে। নৃত্য গীতের আঙ্গিকে এ যোগ সাধন। আর সেই সাধনেই ঋতুনাট্যের কায়া। প্রাসঙ্গিকতা : শারদোৎসব (১৯০৮),অভিনয় যোগ্য সংস্করণ ” ঋণশোধ ( ১৯২১) ফাল্গুনী ( ১৯১৬) ঋতুরঙ্গ ( ১৯২৭) ইত্যাদি।