কক্সবাজারে পর্যটকবাহী বাস ও যাত্রীবাহী সিএনজির মুখোমুখী সংঘর্ষে নিহত ৪

প্রকাশকাল- ১৯:৩৬,জানুয়ারি ৮, ২০১৮,চট্টগ্রাম বিভাগ বিভাগে

কক্সবাজার প্রতিনিধি :

FB_IMG_1515414104771কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভ সড়কে পর্যটকবাহী বাসের সাথে যাত্রীবাহী সিএনজির মুখোমুখী সংঘর্ষে চালকসহ ৪ জন নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছে সিএনজির অপর ১ যাত্রী।

সোমবার দুপুর ১২ টায় মেরিন ড্রাইভ সড়কের রামুর খুনিয়াপালং পেঁচারদ্বীপ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকায় এ দূর্ঘটনা ঘটে। মেরিন ড্রাইভ সড়কের হিমছড়ি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (ভারপ্রাপ্ত) আবদুল হালিম দূর্ঘটনার ঘটনা নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন, টেকনাফের বাহারছড়া পুরানপাড়ার সৈয়দ হোসেনের ছেলে সিএনজি চালক নুরুল আবছার (১৯), উত্তর শীলখালীর মৃত মোহাম্মদ হোসেনের পুত্র মোহাম্মদ উল্লাহ (২২) ও বাইন্যাপাড়ার মৃত হাজি সিকান্দারের ছেলে ছৈয়দুল হক (৫৫)। বাকি একজনের পরিচয় তাৎক্ষণিক কেউ জানাতে পারেননি। ৪ জনের মাঝে চালকসহ দু’জন ঘটনাস্থলে এবং বাকী ২জন কক্সবাজার সদর হাসপাতালে মারা যান বলে জানিয়েছে পুলিশ। আহত অপর ১ জনকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।
প্রত্যক্ষদর্শী বাহারছড়ার রাসেল জানান, সে ওই সিএনজিতে উঠেছিল। পরে আরেক সহপাঠী না আসায় নেমে যায় উক্ত সিএনজি থেকে। আহতদের অবস্থা অবস্থাজনক।

হিমছড়ি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (ভারপ্রাপ্ত) আবদুল হালিম প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে জানান, পর্যটকবাহী ইনানী অভিমূখী বাসটি (ঢাকা মেট্রো ব-১৪-৩৫২৮) মেরিন ড্রাইভ সড়কের পেঁচারদ্বীপ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকায় আসলে কক্সবাজার অভিমূখী কক্সবাজার-থ-১১-২৪৬৪ নাম্বারধারী সিএনজি টেক্সীর মুখোমূখী সংঘর্ষ লাগে। এতে সিএনজিটি দুমড়ে-মুচড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলে মারা যান চালক আবছার ও ছৈয়দুল হক। বাস চালকের হেলপারকে আটক করা হয়েছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরুজুল হক টুটুল দুর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। দূর্ঘটনা কবলিত সিএনজি ও বাসটি পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে। ঘাতক বাসটি জব্দ করেছে রেজুখাল এলাকায় বসা বিজিবি যৌথ চেকপোস্টে দায়িত্বরতরা। আর দুমড়ে মুচড়ে যাওয়া সিএনজিটি জব্দ করেছে হিমছড়ি পুলিশ।