কুলাউড়ায় ভাগ্নার হামলায় মামা গুরুতর আহত

প্রকাশকাল- ২১:৩৬,এপ্রিল ২১, ২০১৭,সিলেট বিভাগ বিভাগে

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার ঃ মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার ১০নং হাজীপুর ইউনিয়নের খাতাইর পাড় গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ভাগ্না কয়েছ (২৩) এর হামলায় আপন মামা হারুন মিয়া (৪০) গুরুতর আহত হয়েছেন। এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত গুরুতর আহত হারুন মিয়া বর্তমানে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ঘটনায় গত ১৮ এপ্রিল কুলাউড়া থানায় গুরুতর আহত হারুন মিয়ার স্ত্রী ইয়াসমিন আক্তার বাদী হয়ে একই এলাকার কায়েছ মিয়া (২৩), জাবেদ মিয়া (২১), হোছনা বেগম (৪৫), মালিক মিয়াসহ অজ্ঞাতনামা ২/৩জনকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেছেন। পুলিশ ঘঠনাস্থল পরিদর্ষন করেছে। এজাহার সুত্রে জানা গেছে- গত ১৫ এপ্রিল সকাল ১০টার দিকে খাতাইর পাড়স্থ ভৃমিতে রক্ষিত মৃত্তিকা বাঁশ জোরপৃর্বক ভাবে ভাগ্না কয়েছ কাটা শুরু করলে তার মামা হারুন মিয়া বাঁধা প্রদান করেন। এ সময উভয়য়ের মধ্যে কতা কাটাকাটি শুরু হলে ভাগ্না কয়েছ এর হাতে থাকা ধারালো ছুরি দিয়ে ঘাই মারিলে তার পেটের বাম সাইডে গুরুতর কাটা রক্তাক্ত জখম ও ডান পায়ের উরুর ভিতর সাইডে পড়িয়া গুরুতর রক্তাক্ত জখম হয়। এ সময় জাবেদ মিয়া (২১), হোছনা বেগম (৪৫), মালিক মিয়াসহ অজ্ঞাতনামা আরও ২/৩জন একই ভাবে গুরুতর আহত হারুন মিয়াকে এলোপাতাড়ি ভাবে শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারপিট করে লিলাফুলা জখম করে ঘঁনাস্থল ত্যাগ করে। স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ এলাকার লোকজন গুরুতর আহত হারুন মিয়াকে উদ্ধার করে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে জরুরী বিভাগে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন।