গুরুদাসপুরে দেড় বছরের শিশু নিখোঁজ তিন দিনেও উদ্ধার হয়নি

প্রকাশকাল- ১৮:০১,সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭,চলনবিলের সংবাদ বিভাগে

গুরুদাসপুর (পৌর) প্রতিনিধি.
আহম্মদ আলী নামের দেড় বছরের এক শিশু নিখোঁজের তিন দিনেও উদ্ধার হয়নি। গত সোমবার বেলা ১১টার দিকে প্রতিবেশির বাড়ি থেকে শিশুটি হাড়িয়ে যায়। নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার জুমাইনগর গ্রামে ওই ঘটনা ঘটে।
এঘটনায় শিশুর পিতা মনতাজ মুন্সি মঙ্গলবার গুরুদাসপুর থানায় সাধারন ডায়েরী করেছেন। তবে নিখোঁজের তিন দিনেও পুলিশ নিখোঁজ শিশুটির হদিস পায়নি।
শিশুর পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, সোমবার বেলা ১১টার দিকে প্রতিবেশি লিপি বেগম (৩২) শিশুটিকে তার বাড়িতে নিয়ে যান। মনতাজের বাড়ি নাজিরপুর ইউনিয়নের জামাইনগর গ্রামে। একই গ্রামে বাড়ি লিপি বেগমের। সেখান থেকেই শিশু আহম্মদ ৫ মিনিটের ব্যবধানে নিখোঁজ হয়। শিশু নিখোঁজের সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে শিশুর পরিবারের লোকজনসহ স্থানীয়রা খোঁজাখুজি করে কোন সন্ধান পায়নি।
নিখোঁজ শিশুর মা আয়েশা বেগম বিলাপ করতে করতে বলেন, ‘আহম্মদ তার ছোট ছেলে। বয়স দেড় বছর। বড় ছেলে মোহাম্মদের বয়স ৭ বছর। সে মাদরাসায় পড়ে। আহম্মদকে খুব ভালবাসতো লিপি ও তার পরিবারের অন্য সদস্যরা। বেশিরভাগ সময় শিশুটি লিপি বেগমের বাড়িতেই থাকতো। ঘটনার দিন লিপি বেগম তাদের বাড়িতে এসে শিশু আহম্মদকে নিজের বাড়িতে নিয়ে যান। তিনি তার ছেলেকে ফিরে চান।’
তবে প্রতিবেশী লিপি বেগম দাবি করেন, তাদের সাথে এবং শিশুর পরিবারের সাথে কারো সত্রুতা নেই। সোমবার সকালে তিনি বাড়ি থেকে শিশুটিকে নিজের বাড়িতে নিয়ে যান। শিশু আহম্মদ বাড়ির ভেতরেই খেলা করছিল। এসময় তিনি অন্য কাজ করছিলেন। মিনিট পাঁচেক পর আর আহম্মদকে পাননি।
গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দিলীপ কুমার দাস বলেন, ঘটনার দিন থেকে পুলিশ আশপাশের পুকুর, ডোবা-নালাসহ স্থানীয়দের বাড়ি তল্লাশি করেছে। তারপরও শিশুটির হদিস পাওয়া যায়নি। ঘটনাস্থল এলাকা পুলিশী নজরদারীর মধ্যে রয়েছে। এছাড়া প্রযুক্তিগত তদন্ত চলছে।