ঘোড়ার গাড়ি ওদের জীবন জীবিকার উৎস

প্রকাশকাল- ১১:৩৫,ডিসেম্বর ১৬, ২০১৭,ফিচার বিভাগে

ইকবাল কবীর রনজু

ঘোড়ার গাড়িআগেকার দিনে যুদ্ধ ক্ষেত্রে ঘোড়ার ব্যাপক ব্যবহার ছিল। সৌখিন ও ধনাঢ্য ব্যক্তিরা সৌখিনতার প্রতীক হিসেবে ঘোড়ায় চড়ে বিভিন্ন যায়গায় যাতায়াত করতেন। ঘোড়ার বাহাজে অংশ নিতেন এবং এখনো অনেকে অংশ নেন। এখন অনেকে পেশা হিসেবে, জীবন জীবিকার প্রয়োজনে ঘোড়া ও ঘোড়ার গাড়ির উপর নির্ভরশীল।

পাবনার চাটমোহরের কুকড়াগাড়ি গ্রামের মৃত জানা মন্ডলের ছেলে আস্তুল মন্ডল। যতটা না বয়স কঠিন বাস্ততবতার মুখোমুখী হয়ে তার চেয়ে বেশী নুয়ে পরেছেন। শারিরিক ভাবে কাজ কর্মে প্রায় অক্ষম হলেও জীবন তো চালাতে হবে। তাই তো সকাল হলেই বেড়িয়ে পরেন ঘোড়ার গাড়ি নিয়ে। ঘোড়ার গাড়িতে করে মাঠ থেকে কৃষকের বোনা আমন ধান বাড়িতে এনে দেন। কাটেঙ্গার মাঠের মধ্যে ঘোড়া গাড়ি নিয়ে ভাড়ার অপেক্ষায় ছিলেন তিনি। আলাপকালে আস্তুল মন্ডল বলেন, “পাঁচ বছর হলো ঘোড়ার গাড়ি চালাই। কোন জমা জমি নাই আমার। এমনকি বাড়ির যাগা ও। রাস্তার পাশে কোন মতে বাড়ি করে আছি। এক মিয়া। বিয়্যা দিছি। এখন বউ ও আমি দুইজন খানে আলা। ১৫ হাজার ট্যাকায় গতবার একটা ঘোড়া কিনছিল্যাম। ঘোড়াডার হাপানীর টান আছিল। গাড়ি বব্যার পারতো না। আমি আর কতদিন বসায়া থুয়্যা খাব্যার দেবো। বাধ্য হয়া শ্যাষ ম্যাষ কিছু দিন আগে ৪ হাজার ট্যাক্যায় বেচ্যা দিছি। বাচ্চাডা বেঁচি নাই। রাখ্যা দিছি”।
তিনি আরো জানান, “প্যারালাইসিস হইছিল আমার। বাও হাত বাও পায়ে শক্তি পাই না। এখন আমন ধানের মওসুম আইছে। বাড়িত বস্যাও ভাল লাগেনা। তাই ধানকুন্যা গ্রামের দিলবার এর ছাওয়াল ঘোড়াআলা জয়নালের কাছ থেক্যা একটা ঘোড়া দাম ধরায়া আনিছি। পঁচিশ হাজার ট্যাকা চাইছে। আগামি চৈত মাসে যহন চলনবিলি রসুন উঠপি তখন রসুন টান্যা জয়নালেক ঘোড়ার দাম দেবো। মাঠে আসি কোনো সময় ভাড়া পাই। কোনো সময় পাই না। দুই এক খেপ পালি কষ্টে শিষ্টে টানি। দু একশ ট্যাকা ভাড়া হয়। বৌ ছুরতি খাতুন বাড়িত বাড়িত ভিক্ষ্যা করে। চাল টাল পায়। এতা দিয়া ওতা দিয়া কোন মতে চল্যা যায় সংসার”।

কাটেঙ্গা মাঠে ঘোড়ার গাড়িতে ধান সাজাচ্ছিলেন কাটেঙ্গা বৌবাজার এলাকার মৃত বাহাদুর আলীর ছেলে হাসেন সরদার (৪৫)। আট নয় মাস পূর্বে ভাড়া বহনের জন্য ২০ হাজার টাকায় ঘোড়া ও একটি গাড়ি কিনেছেন তিনি। হাসেন সরদার বলেন, “ সখ কর‌্যা ঘোড়া ও গাড়ি কিনি। গত চৈত মাসে যখন গম খেশারী মশুর রসুন ওঠে তখন ভাড়া বয়্যা ঘোড়া গাড়ির দাম তুল্যা ফালাইছি। তার কিছু দিন পর ওঠে ইরি ধান। ইরি ধান ও বই। ঘোড়ার গাড়িত লস নাই। তেল মবেল কিচ্ছু লাগে না। মাঠের ঘাস খায়”। তিন ছেলে দুই মেয়ের জনক হাসেন সরদারের দুই কাঠা বাড়ির ভিটা ছাড়া মাাঠাল কোন জমি নেই। বড় মেয়ে ও বড় ছেলেকে বিয়ে দিয়েছেন। বড় ছেলের পৃথক সংসার। ছেলেরা কৃষি কাজ করে। ছোট মেয়ে স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দ্বিতীয় শ্রেণীতে পরে। হাসেন সরদার আরো বলেন, “ছোট মেয়ে, দুই ছেলে, স্ত্রীসহ আমরা পাঁচজন এক অন্নে আছি। পাঁচজনের ভরণ পোষণে অনেক খরচ। মোটা চালই ৪৫ টাকা কেজি। দৈনিক অন্তত তিনশ টেক্যা খরচ। এখন দিন পনেরো ধান টানত্যাছি। পনেরো দিনি পনেরো হাজার টেকার মতো কামাই হবি। ধান কাটা শ্যাষ হলি আর ভাড়া হবি লয়। ছাওয়াল পালের কিছু আয়সহ আমারডা দিয়্যা কোন রকমে দিন পার করি”।