তথ্য মন্ত্রীর পদত্যাগ ও বিতর্কিত ৫৭ ধারা বাতিলের দাবিতে সাংবাদিকদের মানববন্ধন

প্রকাশকাল- ১৬:৪৪,আগস্ট ১০, ২০১৭,জাতীয় বিভাগে

মানববন্ধনতথ্য মন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর পদত্যাগের দাবি এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের বিতর্কিত ৫৭ ধারা বাতিলে সাংবাদিকদের মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার দুপুরে শিমরাইল ডাচ বাংলা পয়েন্টে এ কর্মসূচী পালন করা হয়। সিদ্ধিরগঞ্জে রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম বাবুলের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শরীফ উদ্দিন সবুজ, অধিকারের নারায়ণগঞ্জের সমন্বয়ক ও মানবজমিনের স্টাফ রিপোর্টার বিল্লাল হোসেন রবিন, জনকন্ঠের স্টাফ রিপোর্টার খলিলুর রহমান, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও যুগান্তরের সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি হোসেন চিশতি সিপলু, নিউজ টুয়েন্টিফোরের রুপগঞ্জ প্রতিনিধি জাহাঙ্গীর আলম হানিফ, আরটিভির নারায়ণগঞ্জ উত্তর প্রতিনিধি শাহাদাত হোসেন স্বপন, নয়া দিগন্তের সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি মোঃ এমরান হোসেন, যুগান্তরের রূপগঞ্জ প্রতিনিধি এ হাই মিলন, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি এম.এ শাহীন, কালের কন্ঠের রূপগঞ্জ প্রতিনিধি এস.এম সাহাদাত হোসেন, আড়াইহাজার প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান, সোনারগাাঁ উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আসাদুজ্জামান নুর, সিদ্ধিরগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম নয়ন, জিটিভির জেলা প্রতিনিধি আশিকুর রহমান হান্নান, ভোরের ডাকের জেলা প্রতিনিধি মোস্তাক আহামেদ শাওন, মাইটিভির হাসান মজুমদার বাবলুসহ জেলার বিভিন্ন থানার প্রায় শতাধিক সাংবাদিক মানববন্ধনে অংশ নেন।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন আইসিটি আইনের ৫৭ ধারা গণমাধ্যমের কন্ঠ রোধ ও স্বাধীন মত প্রকাশের অন্তরায়। এই আইন সংবিধানের ৩৯ অনুচ্ছেদের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে এ ধরনের কালো আইন সুখকর হতে পারে না। বক্তরা মনে করেন, গনমাধ্যমকর্মীদের বস্তু নিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশ থেকে দুরে রাখতেই এই ৫৭ ধারা যথেচ্ছাভাবে ব্যবহার করে গণমাধ্যমকর্মীদের হয়রানী করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে অনেকে মামলার শিকার হয়ে কারাভোগ করেছেন। ভবিষ্যতে এই আইন গনমাধ্যমকর্মীদের বিরুদ্ধে আরো বেশী অপপ্রয়োগ হবে আশংকা করা হয়। তাই অবিলম্বে ৫৭ ধারা বাতিলের দাবি জানান। অন্যথায় সাংবাদিক সমাজ এই আইন বাতিলের দাবিতে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলবে। এক পর্যায়ে বক্তারা তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর পদত্যাগ ও মন্ত্রী পরিষদ থেকে তাকে বহিস্কারের দাবি জানান।