দক্ষিণ বিশ্বনাথ মহিলা কলেজে ২৭ শিক্ষার্থী সংবর্ধিত

প্রকাশকাল- ২১:০৭,অক্টোবর ১৯, ২০১৭,চলনবিলের সংবাদ বিভাগে

মোঃ আবুল কাশেম, বিশ্বনাথ প্রতিনিধি :: সিলেট জেলা পরিষদের সদস্য, জাতীয় পার্টি নেতা, ব্যবসায়ী সহল আল-রাজি চৌধুরী বলেছেন, দেশ ও জাতীকে এগিয়ে নিতে সুশিক্ষার কোন বিকল্প নেই। শিক্ষা হচ্ছে জাতীর মেরুদন্ড। আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষৎ হিসেবে প্রত্যেক অভিভাবককে আলাদাভাবে নজর দিতে হবে। তিনি বলেন, সরকার শিক্ষার প্রতি সব সময় আন্তরিক আছে ভবিষৎতে থাকবে তাই সরকারকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে সহযোগিতার হাত সব সময় প্রসারিত থাকতে হবে। বৃহস্পতিবার সরুয়ালা ফাউন্ডেশন ট্রাস্ট ইউকে ও দক্ষিণ বিশ্বনাথ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের আয়োজনে বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়নের দক্ষিণ বিশ্বনাথ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড মহিলা কলেজে থেকে ২০১৭ সালে প্রথম বারের মতো ২৭ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়ে শতভাগ ফলাফল অর্জনকারী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও মেধাবীদের বই বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
কলেজ গভনিং বডি’র সভাপতি মো. ছয়ফুল হক চেয়ারম্যানের সভাপতিত্বে ও কলেজ উন্নয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও বিশ্বনাথ প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি তজম্মুল আলী রাজু ও কলেজের শিক্ষক নাজমুল হক এর যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত্ব বক্তব্য রাখেন দক্ষিণ বিশ্বনাথ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ কাজী মোতাহার হোসেন শাহিন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা জাতীয় পার্টির সাবেক আহবায়ক মো. সিতাব আলী, যুগ্ম-আহবায়ক জয়নাল আবেদীন, বিশ্বনাথ পুরাণবাজার বণিক কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক জয়নাল মিয়া, বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক শংকর কান্তি মন্ডল, কলেজের প্রভাষক সুরাইয়া আক্তার। শিক্ষার্থীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জহুরা আক্তার নাদিয়া।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কলেজ উন্নয়ন কমিটির সভাপতি আব্দুল জলিল রবান, শিক্ষানুরাগী আখলাকুর রহমান, নুরুল হক লেচু মোল্লা, তফজ্ঝুল আলী মেম্বার, সাদউদ্দিন, হাবিবুর রহমান, নজির মিয়া, মো. মফিক মিয়া, টিপু আলী, আজিজুল, ফারুক মিয়া, ফজলুর রহমান, মিষ্ঠার লাল মিয়া, শিক্ষক সমীর কান্তি দে, রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।
অনুষ্ঠানের শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন বিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক মাওলানা আবুল বাশার। অতিথিবৃন্দকে ফুল দিয়ে বরণ করেন দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রী সারফ নওশিন সায়রা, ছাইমা আক্তার পপি, একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী ইশা আক্তার ফারজানা, ফাহিয়া তাহসিন ও দশম শ্রেণীর ছাত্রী নাইমা আক্তার, ফাতেহা বেগম।