দুর্গাপুর ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনটি দীর্ঘ ৫বছরেও চালু হয়নি

প্রকাশকাল- ১৭:২৮,অক্টোবর ১০, ২০১৭,ময়মনসিং বিভাগ বিভাগে

নির্মলেন্দু সরকার বাবুল, দুর্গাপুর(নেত্রকোনা)

Durgapur- 10

নেত্রকোনার দুর্গাপুর পৌর শহরের চকলেঙ্গুরা এলাকায় নির্মিত উপজেলা ফায়ার সার্ভিস অফিস এখন ব্যবহৃত হচ্ছে সকল প্রকার অসামাজিক কাজে।

মঙ্গলবার সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, অফিসের গেইটে নাম মাত্র তালা ঝুলে থাকলেও কোন নৈশ প্রহরী বা দিনের পর দিন কোন লোক না থাকায় দিনের বেলাতেও বেশ আরামে বসেই সকল প্রকার অসামাজিক কার্যক্রম চালানোর সুযোগ পাচ্ছে বখাটে শ্রেনী। মঙ্গলবার দুপুরে ছবি উঠাতে গেলে সংবাদকর্মী টের পেয়ে গাঁজা সেবনকারী ও তীর কাউন্টার (অনলাইন জুয়া) খেলতে থাকা অনেকেই ছটকে পড়ে। একজন গাঁজা সেবনকারীর জানায়, জায়গাটি বেশ নির্জন এবং চারদিক বাউন্ডারী থাকায় আমরা সকলের চোখ এড়িয়ে এখানে বসেই আমাদের কাজ করছি। সন্ধ্যার পর অনেক স্কুল কলেজ এর ছাত্র এখানে জুয়া, মদ ও গাঁজা সেবন করতে আসেন। ২০০৩ সালে দুর্গাপুর বাজারে বড় ধরনের অগ্নিকান্ডে প্রায় ২০কোটি টাকার ক্ষতি হলে ১১মার্চ ২০১২ সালে তৎকালীন সংসদ সদস্য মোঃ মোশতাক আহমেদ রুহী উপজেলা ফায়ার ষ্টেশন উদ্ভোধন করেন এবং ২কোটি টাকা ব্যায়ে ২০১৪ সালে কাজটি সম্পন্ন হয়। এর পর থেকে নানা জটিলতার কারনে ঠিকাদারের নিকট থেকে অদ্যাবধি পর্যন্ত ফায়ার ষ্টেশনটি সরকারী ভাবে হস্তান্তর করা হয়নি। এছাড়া জনবল নিয়োগ না দেয়ার কারনে এখন পর্যন্ত অযতেœ আর অবহেলায় পড়ে আছে ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনটি। পরবর্তিতে সকল জটিলতা কাটিয়ে ২০১৭ সনের জুলাই মাসে জনবল নিয়োগ এর কার্যক্রম সম্পন্ন হলেও অজ্ঞাত কারনে আর চালু হয়নি। ফায়ার ষ্টেশন এলাকার আইন শৃঙ্খলা বিষয়ে দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মিজানুর রহমান বলেন আকন্দ, বিষয়টি আমরাও শুনেছি, আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রনের লক্ষ্যে এখন থেকে ঐ এলাকায় পুলিশের নজরদারী বাড়ানো হবে। ঠিক একই অবস্থায় পাশ্ববর্তি কলমাকান্দা উপজেলা ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনটি এভাবেই পড়ে আছে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় সংসদ সদস্য ছবি বিশ্বাস মহোদয়ের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, সকল জটিলতা কাটিয়ে এলাকার প্রানের দাবী ফায়ার ষ্টেশনটি, অল্প কিছু দিনের মধ্যেই আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্ভোধন করা হবে।