নাসিরপুরে “অপারেশন হিট ব্যাক” ও বড়হাটে “অপারেশন ম্যক্সিমাস” বাড়ি দু’টি চার মাস পর কেয়ারটেকারের কাছে হস্তান্তর

প্রকাশকাল- ১৯:২৩,আগস্ট ১৩, ২০১৭,সিলেট বিভাগ বিভাগে

bariমশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার ঃ মৌলভীবাজারের পৌর এলাকার বড়হাট ও নাসিরপুরের জঙ্গি আস্তানার বাড়ি দুটি হস্তান্তর করা হয়েছে। দীর্ঘ চার মাস পর বাড়ি দুটি কেয়ারটেকার এর কাছে বাড়ী দু’টি হস্তান্তর করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। গত বুধবার বাড়ি দ’ুটি কেয়ারটেকার জুয়েলের কাছে হস্থান্তর করেন মৌলভীবাজার সিআইডির ওসি আব্দুছ সালেক। জঙ্গি অভিযানের পর থেকে বাড়ী দু’টি হস্থান্তরের আগ মহুর্ত পর্যন্ত পুলিশের হেফাজতে ছিল। জনসাধারণের প্রবেশ নিষেধাজ্ঞাসহ দুইটি বাড়িতে ২৪ ঘন্টা মোতায়েন ছিলো পুলিশ। গত ১৫ জুলাই সিআইডির একটি বিশেষ টিম বরহাট ও নাসিরপুরের জঙ্গি আস্তানার বাড়ি দুটি পরিদর্শণ করে চূড়ান্ত আলামত সংগ্রহ করে। এদিকে এতদিন পরও জেলা সদরের বড়হাট ও নাসিরপুরে বিলাশবহুল বাড়ির আশপাশেও আসছে না স্থানীয় এলাকার কোন মানুষ। দীর্ঘ দিন অতিবাহিত হওয়ার পরও আতষ্ক কাটে না তাদের। কৌতুহলী মানুষজন দূর থেকে একনজর দেখা ছাড়া আর কোন সুযোগ নিতে চায় না এলাকার মানুষ। সর্বাধুনিক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত স্পেশাল উইপন্স অ্যান্ড ট্যাক্টিকস (সোয়াট) নাসিরপুরে “অপারেশন হিট ব্যাক” ও বড়হাটে “অপারেশন ম্যক্সিমাস” চলা কালে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে দুই শিশুসহ নিহত হয় মোট ১০ জন। এর মধ্যে নাসিরপুরে নিহত পুরো একটি পরিবারের ৭ জন ও বরহাটে নিহত হয় ৩ জন। নাসিরপুরে “অপারেশন হিট ব্যাক” নিহত পুরো একটি পরিবারের ৭জনের পরিচয় পাওয়া গেলেও বড়হাটে নিহত ১ জনের পরিচয় শনাক্ত করা গেলেও বাকী ২ জনের পরিচয় পাওয়া যায়নি। পরিচয় পাওয়া ৮জনের স্বজনরা লাশ গ্রহনে অনিহা প্রকাশ করলে পরিচয়হীন দুই লাশের সাথে পৌর এলাকায় পৃথক সময়ে ১০ জনের লাশ কবরস্থ করে মৌলভীবাজার পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। উল্লেখ্য, গত ২৯ মার্চ মঙ্গলবার রাত থেকে বড়হাট ও নাসিরপুর দুইটি জঙ্গি আস্তানা ঘিরে রাখেছিলো পুলিশ ও র‌্যাব। পৃথক দুটি বাড়িতে জঙ্গি আস্তানায় আশপাশের দুই কিলোমিটার জুড়ে ১৪৪ ধারা জারি করে প্রশাসন। ওইদিন সন্ধ্যা থেকে পর্যায়ক্রমে অভিযান চালায় (সর্বাধুনিক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত স্পেশাল উইপন্স অ্যান্ড ট্যাক্টিকস) সোয়াট দল। নাসিরপুরে সোয়াত টিমের প্রধান মরিরুল ইসলামের নেতৃত্বে “অপারেশন হিটব্যাক” পরিচালনা করা হয়। অপারেশন হিটব্যাক চলা কালে আত্মঘাতি বোম বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ওই আস্তানায় দুই শিশুসহ একই পরিবারের ৭জন নিহত হয়। নাসিরপুর অপারেশন হিট ব্যাক চলা কলে মৌলভীবাজার পৌরসভার বড়হাট জঙ্গি আস্তানা ঘিরে রাখে পুলিশ ও র‌্যাব। পরের দিন ৩০ মার্চ সন্ধ্যায় বড়হাটের জঙ্গি আস্তানা রেকি করার পর রাতে অভিযানে নামে সোয়াট টিম। অভিযানের নাম দেওয়া হয় “অপারেশন ম্যাক্সিমাস”। এতে নিহত হয় নারীসহ তিন জঙ্গি। বড়হাট ও নাসিরপুর এলাকার বাড়ি দুটির মালিক লন্ডন প্রবাসী সাইফুর রহমান। তিনি লন্ডনের ট্যাক্সি চালাক। টিনশেডের বাড়িটি প্রায় তিন একর জায়গার উপর নির্মিত। বড়হাটার বাড়িটি ডুপ্লেক্স। তিনি প্রবাসী হওয়ায় বাড়ি দুটি দেখা শোনার দায়িত্ব দেন নিকট আত্মীয় জুয়েলকে। তিনি ওই দুই বাড়ির তত্ত্বাবধায়কের দায়িত্বে ছিলেন।