পাবনা-৩ আসনে বিএনপির মনোনয়ন চান সাবেক ছাত্রনেতা অ্যাডঃ মাসুদ খোন্দকার

প্রকাশকাল- ২১:২৫,আগস্ট ১২, ২০১৭,চলনবিলের সংবাদ বিভাগে

masud মাসুদ খোন্দকারমোঃ মনিরুজ্জামান ফারুক,ভাঙ্গুড়া (পাবনা)
আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পাবনা-৩ (ভাঙ্গুড়া,ফরিদপুর ও চাটমোহর) আসন থেকে বিএনপির মনোনয়ন চান পাবনা জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি সাবেক ছাত্রনেতা অ্যাডভোকেট মাসুদ খোন্দকার। পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার অষ্টমনিষা ইউনিয়নের রুপসী গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে তার জন্ম। পিতা খোন্দকার হবিবুর রহমান ছিলেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা।
জানাগেছে, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে তিনি ১৯৮৪ সালে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলে যোগদেন। সেই থেকে রাজনৈতিক জীবনে শুরু হয় তার পথচলা। সততা ,নির্ভীক নেতৃত্ব ও জ্বালাময়ী বক্তব্যের কারণে একের পর এক দলের নানা গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব তার কাঁধে চলে আসে। বীরত্বের সাথে সে সকল দায়িত্ব তিনি পালন করে চলেছেন। ৯০’এর স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলণে বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারণে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে তিনি গ্রেফতার হন।
পাবনা জেলা জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক,ভাঙ্গুড়া উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ,পাবনা জেলা বিএনপির সাবেক সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের মতো গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে তিনি দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। এ ছাড়া তিনি জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি পদে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন।
রাজনীতির পাশাপশি তিনি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ড পরিচালনা করে চলেছেন। বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা পাবনা জেলা শাখার সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক,রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি পাবনা জেলা শাখার আজীবন সদস্য,সন্ধানী ডোনার ক্লাব পাবনা জেলা শাখার আজীবন সদস্য,আঞ্জুমান মফিদুল ইসলাম,পাবনার আজীবন সদস্যসহ আরও বেশ কিছু সামাজিক প্রতিষ্ঠানের সাথে তিনি জড়িত রয়েছেন।

পাবনা জেলা বার সমিতির দুই বার নির্বাচিত সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাসুদ খোন্দকার আইন পেশায় জড়িত থাকার সুবাদে দীর্ঘদিন ধরে তিনি দলের নির্যাতিত-নিপীড়িত নেতা-কর্মীকে আইনী সহায়তা দিয়ে আসছেন। জানাগেছে,এক সময়ের রাজপথ কাঁপানো সাবেক এই ছাত্র নেতার এলাকায় রয়েছে বেশ জনপ্রিয়তা। এ আসনটি থেকে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে এমপি হতে এলাকায় তিনি নানা তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন।