বগুড়ায় এসপির সঙ্গে খুনের মামলার আসামি বৈঠক করেছে : রিজভী

প্রকাশকাল- ১৪:৫৯,আগস্ট ২, ২০১৭,রাজনীতি বিভাগে

রিজভীঢাকা: পুলিশের এসপির সঙ্গে খুনের মামলার আসামির দহররম মহররম চলছে বলে মন্তব্য করেছেন, বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী।
বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে রিজভী আহমেদ এ কথা বলেন। বগুড়ায় মা-মেয়েকে নির্যাতনের প্রতিবাদে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।
রিজভী বলেন, বগুড়ার মতিন সরকারের নামে খুনের মামলা রয়েছে। তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানাও জারি রয়েছে। অথচ তিনি পুলিশের এসপির সঙ্গে মিটিং করেন। পুলিশের উৎসবে যান তিনি। বগুড়া শহরে তিনি ঘোরাফেরা করেন। মন্ত্রীরা সেখানে গেলে তিনি রিসিভও করেন।’
বগুড়ার আলোচিত ধর্ষক ও নারী নির্যাতনকারী তুফান সরকারের বড় ভাই শহর যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক মতিন সরকার একাধিক হত্যা মামলার আসামি বলে জানান তিনি।
আবু নাসের উজ্জ্বল হত্যা মামলায় পাঁচ বছর আগে গ্রেফতার হলেও অল্প কিছুদিনের মধ্যেই তিনি জামিনে মুক্তি পেয়ে যান।
এরপর মামলায় হাজিরা না দেয়ায় তার বিরুদ্ধে জারি হয় গ্রেফতারি পরোয়ানা। এরপর থেকেই তিনি ‘পলাতক’। পুলিশ ও আদালতের দৃষ্টিতে মতিন সরকার পলাতক হলেও এলাকায় তিনি পুলিশের সামনেই প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।
শাসক দলের সহযোগী সংগঠন যুবলীগের এই নেতা প্রকাশ্যে ডিসি, এসপি ও দলীয় নেতাদের সঙ্গে সভা-সমাবেশেও যোগ দেন। গত বছর ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে একজন প্রভাবশালী মন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। আদালতের দৃষ্টিতে পলাতক দেখানোর কারণে ৫ বছর ধরে সরকারি খরচে তার জন্য নিয়োগ করা হয়েছে আইনজীবী। এজন্য সরকারের তহবিল থেকে বিপুল অংকের অর্থ ব্যয় করতে হয়েছে।
মঙ্গলবার বিকালে যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর বরাত দিয়ে জেলা যুবলীগ থেকে মতিন সরকারকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়।

কিশোরী ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় রিমান্ডে থাকা তুফানের ভাই মতিন সরকারের এসব অপকর্ম এখন এলাকায় মানুষের মুখে মুখে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও সরকারি কৌঁসুলিদের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।