রাবিতে ছাত্রের হাতে শিক্ষক লাঞ্চিত বিচারের দাবীতে মানববন্ধন-স্মারকলিপি, মামলা

প্রকাশকাল- ১৭:৩৬,সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৭,রাজশাহী বিভাগ বিভাগে

রাশেদুল ইসলাম রাজন, রাবি প্রতিনিধি:

ooরাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ে ইনটার্নশিপ পেপারে স্বাক্ষর করাকে কেন্দ্র করে শিক্ষককে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিতকারী ছাত্রের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি দিয়েছে শিক্ষার্থীরা। একই দাবিতে বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা প্রো-ভিসির সাথে দেখা করে বিচার দাবি করেছেন। এছাড়া ঐ ছাত্রের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে মারধরের শিকার প্রফেসর মেহা. হাছানাত আলী।
হামলাকারী ছাত্র ইনস্টিটিউট অব বিজেনেস এডমিনিস্ট্রেশন (আইবিএ)-এর এমবিএ ৯ম ব্যাচের (স্যান্ধ্যকালীন) ছাত্র নাহিদ হায়দার ও হমলার শিকার একই ইনস্টিটিউটের শিক্ষক প্রফেসর মোহা. হাছানাত আলী।
মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে আইবিএ-এর শিক্ষার্থীরা শিক্ষক হাছানাত আলীকে মারধরকারী ছাত্রের বিচারের দাবীতে মানববন্ধন করে। বিশ^বিদ্যালয় আইবিএ ভবনের সামনে অনুষ্ঠিত এ মানববন্ধনে আইবিএ অনার্স ১ম ব্যাচের শিক্ষার্থী শফিকুল ইসলামের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন ১ম ব্যাচের শিক্ষার্থী বিবেক মোর, ২য় ব্যাচের ফয়সাল হাসান হাসিব। মানববন্ধনে শতাথিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।
এসময় শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘শিক্ষকরা পিতার মত। তার সাথে যে ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটেছে তার নিন্দা জানাই। নাহিদ হায়দার নামের ঐ শিক্ষার্থী যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটিয়েছে, তাকে বহিষ্কার করে আইবিএ কে কলুষ মুক্ত করার দাবি জানাচ্ছি।’ মানববন্ধন শেষে ইনস্টিটিউট পরিচালক প্রফেসর ড. মুহাম্মদ রফিকুল ইসলামের কাছে তার ছাত্রত্ব বাতিলের দাবী জানিয়ে স্মারকলিপি দিয়েছে তারা। পরে একই দাবীতে বিশ^বিদ্যালয় প্রো-ভিসি প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহার কাছেও লিখিত অভিযোগ পত্র দেয়। এছাড়া সিনেট ভবনের সামনে তারা মৌন মিছিল করে।
এদিকে ঐ ছাত্রের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে ভূক্তভোগী শিক্ষক প্রফেসর মেহা. হাছানাত আলী। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেন মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদি হাসান। তিনি বলেন, ‘ হাছানাত আলী স্যার নিজেই বাদী হয়ে গতকাল রাতে মামলা করেছেন। মামলার নম্বর হচ্ছে ৫৪/৪৩০। আর ৪৪৮, ৩২৩, ৩২৫, ৩০৭, ৫০৬ ধারায় নাহিদ হায়দারের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। ঐ ছাত্রকে দুপুরে কোর্টে তোলা হয়।’
এছাড়া হমলাকারী ছাত্রের শাস্তির দাবীতে বিশ^বিদ্যালয় প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. আনন্দ কুমার সাহার সাথে অর্ধশত শিক্ষকের একটি প্রতিনিধি দল সাক্ষাত করে। সাক্ষাত শেষে অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর ড. কে বি এম মাহবুবুর রহমান সংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা প্রো-ভিসি স্যারের দেখা করে হামলাকারী ছাত্রের বিরুদ্ধে প্রশাসনিকভাবে মামলা ও একটি তদন্ত কমিটি গঠনের মাধ্যমে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছি।’
শিক্ষকদের দাবীর ব্যাপারে জানতে চাইলে প্রো-ভিসি আনন্দ কুমার সাহা বলেন, ‘শিক্ষকদের একটি প্রতিনিধি দল এসেছিল আমার সাথে কথা বলতে। তারা মামলাকারী ছাত্রের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করেছি। তবে বিশ^বিদ্যালয়ের ভিসি এই মুহুর্তে বাহিরে আছে। তিনি আসলে আলোচনার মাধ্যমে বিশ^বিদ্যালয়ে প্রচলিত আইন অনুসারে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’
এদিকে নিজের হামলার বিষয়টি জানিয়ে বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির কাছে লিখিত অভিযোগপত্র দিয়েছেন হাছানাত আলী। জানতে চাইলে সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর রুহুল আমিন বলেন, ‘তিনি অভিযোগপত্র দিয়েছেন। আগামীকাল বিকালে সমিতির এক জরুরী সভায় এব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’
বিভিন্ন সংগঠনের নিন্দা:
এদিকে হামলার ঘটনাটিকে লজ্জাজনক উল্লেখ করে নিন্দা ও অপরাধীর শাস্তির দাবী জানিয়েছেন রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয় জাতীয়তাবাদ ও ইসলামী মূল্যবোধে বিশ^াসী শিক্ষক গ্রুপ (সাদাদল)। সংগঠনটির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক প্রফেসর ড. এনামুল এক বার্তায় এই প্রতিবাদ জানান। একইভাবে জাতীয়তাবদী শিক্ষক ফোরামের সভাপতি প্রফেসর কেবিএম মাহবুবুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশীদ এঘটনার নিন্দা জানিয়েছে।
এছাড়া জিয়া পরিষদ, ছাত্র ফেডারেশন, রাবি প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন সংগঠন এঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।