লালমনিরহাটে লাগামহীন বাড়ছে পিয়াজের দাম দু’সপ্তাহের ব্যবধানে দ্ধিগুন-সাধারন মানুষের নাবিশ্বাস

প্রকাশকাল- ০৭:২১,আগস্ট ৫, ২০১৭,অর্থনীতি বিভাগে

Lal Pic Onion(1)বদিয়ার রহমান, লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি। কোরবানী ঈদের এখনো বাকী প্রায় একমাস। হঠাৎ বৃদ্ধি পেয়েছে পিয়াজের দাম। যা দু’সপ্তাহের ব্যবধানে দ্ধিগুন। লালমনিরহাটের গোসালা বাজার,সাপটানা বাজার, সেনামৈত্রী মাকেট,বিডিআর হাট,নয়ারহাটস, মহেন্দ্রনগর,বড়বাড়ীসহ গ্রামাঞ্চলের বিভিন্ন হাটবাজার ঘুরে জানাযায়, পিয়াজের দাম হঠাৎ দ্ধিগুন বৃদ্ধি পেয়েছে। যা সাধারন মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে। সাধারন মানুষের অভিযোগ, এখনো কোরবানী ঈদের বাকী এক মাস। এরই মধ্যে পিয়াজের দাম ১০ থেকে ১৫ দিনের ব্যবধানে দ্ধিগুন বেড়েছে। তাদের অভিযোগ, দু’সপ্তাহে পুর্বে প্রতিকেজি পিয়াজ বিক্রি হতো ২০ টাকা। যা বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৪২ টাকা। এব্যাপারে খুচরা ব্যবসায়ীরা জানান, কোরবানী ঈদের এক মাস আগে পিয়াজের দাম হঠাৎ বৃদ্ধি পেয়েছে। আগে যে পিয়াজ ১২ থেকে ১৩ টাকা কেজি প্রতি ক্রয় করছেন তা বর্তমানে ৩১ থেকে ৩২ টাকা কেজি দরে ক্রয় করতে হচ্ছে। বিভিন্ন খরচ সহ প্রতিকেজি পিয়াজ ৩৩ থেকে ৩৪ টাকা ক্রয় মুল্য পরে। পঁচনশীল ও কাঁচামল বিধায় ঘারতি ধরে প্রতিকেজি পিয়াজ ৪০ থেকে ৪২ টাকা বিক্রি করতে হয় তাদের জানান খুচরা ব্যবসায়ীরা। হঠাৎ পিয়াজের মুল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় সাধারন মানুষের অভিযোগ, কোরবানী ঈদের এক মাস পুর্বে পিয়াজের বাজার চড়া হলে ঈদের কয়েকদিন আগে এর মুল্য দাঁড়াতে পারে প্রতিকেজি ১শ টাকা। বিডিআর হাটের কাঁচামাল ব্যবসায়ী আব্দুস সাত্তার বলেন, পিয়াজের মুল্য হঠাৎ বৃদ্ধি পাওয়ায় যেমন পুঁজি বেশি লাগছে তেমনি ক্রেতাদেরও নাবিশ্বাস আসছে। এদিকে একটি সুত্র জানিয়েছে, কোরবানী ঈদকে কাজে লাগিয়ে পিয়াজ ব্যবসায়ীদের মধ্যে একটি বড় সিন্ডিকেট তৈরী হতে পারে। ফলে বাজার মনিটরিং করা প্রয়োজন বলে মনে করেন সচেতন মহল। খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, ভারত থেকে আমদানীতে পিয়াজের কমতি নেই। কিন্তু হঠাৎ মুল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় বিষয়টি নিয়ে জনমনে প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে উঠেছে। এব্যাপারে লালমনিরহাট চেম্বার অব কমার্স’র সভাপতি কামরুল হাসান বকুল বলেন, হঠাৎ পিয়াজের বাজার মার্কেটে বৃদ্ধি পাওয়ায় বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ইতোমধ্যে এবিষয়টি নিয়ে আলোচনা চলছে।