শ্যামনগর রমজাননগর কৈখালী কৃষকদের আতংকের নাম কৈখালী তহশীলদার রেজাউল করিম

প্রকাশকাল- ২৩:৪৬,আগস্ট ৬, ২০১৭,খুলনা বিভাগ বিভাগে

yyএস কে সিরাজ,শ্যামনগর।। ব্যাপক অনিয়ম দুর্নিতীতে রেকর্ড করেছে শ্যামনগর উপজেলার কৈখালী তহশীলদার রেজাউল করিম। ওই দুই ইউনিয়নের সাধারন মানুষদের বিশেষ করে কৃষকদের জিম্মী করে লুটে নিচ্ছে অবৈধ পয়সা নায়েব রেজাউল করিম। পয়সা দিতে রাজি না হলে তাদেরকে করা হচ্ছে অহেতুক হয়রানী। তহশীলদার রেজাউল করিমের হয়রানীতে সাধারন মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। সাধারন মানুষের ধর্যের বাধ ভেঙ্গে গেছে। যে কোন জলন্ত আগুনের মত ফুসে উঠবে সাধারন মানুষ। তার ব্যাপক অনিয়ম দুর্নিতীর তদন্ত হবে সোমবার সকাল ১০ টায়।বরাবরই তিনি প্রসাশনকে তোয়াক্কা না করে নিজেকে বড় ক্ষমতাবান মনে করেন।সাধারন মানুষের সামনে প্রসাশনের উদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের বিষয়ে বিভিন্ন ধরনের বাজো মন্তব্য করে থাকে এই আলোচিত তহশীলদার রেজাউল করিম।কৈখালী ভুমি অফিসে আগামীকাল আর আর ডি  সি তদন্ত করবেন।

এদিকে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে আর আর ডি সি সরেজমিনে তদন্ত করবেন। কৈখালী ভুমি অফিসে সেবা নিতে আসা সাধারন মানুষ ব্যাপক হয়রানীর শিকার হচ্ছে। বিশেষ করে চলমান জরিপে কৈখালী মৌজায় সাধারন মানুষের ডিপি খতিয়ানে অহেতুক কেস করে খাজনা দাখিলা না দেখালে জমি খাস করে দেয়া হবে বলে  তহশীল অফিস থেকে হুমকি দেয়া হচ্ছে।
  আর এই সুবাদে এক টাকার খাজনায় এক হাজার টাকা হারে আদায় করা হয় কিন্ত চেকে এক টাকাই লেখা হচ্ছে। এ ছাড়া বাজার পেরিফেরিতে দোকান বরাদ্ধ, নাম পত্তন, তদন্ত প্রতিবেদন সহ সকল ক্ষেত্রে ঘুষ গ্রহন ও অনিয়ম দূর্নীতির রাম রাজত্ব কায়েম করা হয়েছে। সাধারন মানুষের কাছে আতংকের জায়গা হয়ে উঠেছে  কৈখালী ভুমি অফিসটি। এ ধরনের শত শত অভিযোগ নিয়ে জনতার পক্ষে সোরা গ্রামের এমান গাজীর পুত্র সাইফুল ইসলাম সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসকের নিকটে অভিযোগ করেন। এই অভিযোগ আগামী কাল সোমবার তদন্ত হবে। সাইফুল ইসলাম ভুক্তভোগীদের আগামী কাল সকাল ১০.০০ ঘটিকায় কৈখালী ভুমি অফিসে হাজির থেকে স্ব স্ব অভিযোগ তদন্ত কর্মকর্তার কাছে পেশ করার আহ্বান জানিয়েছেন।
এবিষয়টি নিয়ে তহশীলদার রেজাউল করিমের সাথে কথা বলার জন্য মোবাইল- ফোনে একাধিকবার রিং করা হলেও তিনি রিসিফ করেননি।